ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক মানেই কাশ্মীরিদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা: ইমরান
  1. [email protected] : জাহিদ হাসান দিপু : জাহিদ হাসান দিপু
  2. [email protected] : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা
  3. [email protected] : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  4. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  5. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  6. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  7. [email protected] : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  8. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  9. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  10. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  11. [email protected] : Sobuj Ali : Sobuj Ali
ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক মানেই কাশ্মীরিদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা: ইমরান
মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন

ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক মানেই কাশ্মীরিদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা: ইমরান

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৩১ মে, ২০২১
  • ৮০ জন পড়েছেন

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, এ মুহূর্তে ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখা মানেই হচ্ছে কাশ্মীরের জনগণের সঙ্গে বেইমানি করা।

তিনি বলেন, আগে কাশ্মীর সমস্যার সঠিক সমাধান, পরে ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক স্থাপন। খবর আলজাজিরার।

পাকিস্তানের সাধারণ মানুষের সঙ্গে টেলিফোন সেশনে আলাপকালে রোববার এ মন্তব্য করেন ইমরান খান।

তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের পক্ষে দুদেশের সম্পর্ক উন্নয়নে উদ্যোগ নেওয়া ঠিক হবে না। পাকিস্তান এমন উদ্যোগ নিলে তা কাশ্মীর অঞ্চলে নিহত লক্ষাধিক মানুষের সঙ্গে প্রতারণা হবে।

অঞ্চলটিতে যারা এখনও নিজেদের স্বাধীনতার জন্য লড়ছেন, তাদের সঙ্গেও বেইমানি হবে বলে মন্তব্য করেন ইমরান খান।

ইমরান আরও বলেন, আমি ক্ষমতায় বসার পরের দিন থেকেই কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

সম্প্রতি পাকিস্তান সফরে এসে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের প্রেসিডেন্ট ভোলকান বোজকির বলেছেন, ভারত-পাকিস্তান দুদেশের পক্ষে আলাদাভাবে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়।

এ ইস্যুতে দুদেশেরই অহেতুক কথার লড়াই বন্ধ করতে হবে। তবে ইস্যুটিকে আরও গুরুত্ব দিয়ে যেন জাতিসংঘে উত্থাপন করা হয় সে বিষয়ে জোর দিয়েছিলেন তিনি।

২০১৯ সালের আগস্টে ভারত জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে। ফলে কাশ্মীর এতদিন যে বিশেষ অধিকার পেত, তা এর মাধ্যমে খারিজ হয়ে যায়।

একই সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যটিকে ভেঙে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। এর একটি হলো লাদাখ, অন্যটি জম্মু-কাশ্মীর।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড