যুক্তরাষ্ট্রের মেডিকেল জার্নালে বঙ্গভ্যাক্সের গবেষণাপত্র
  1. [email protected] : জাহিদ হাসান দিপু : জাহিদ হাসান দিপু
  2. [email protected] : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা
  3. [email protected] : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  4. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  5. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  6. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  7. [email protected] : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  8. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  9. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  10. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  11. [email protected] : Sobuj Ali : Sobuj Ali
যুক্তরাষ্ট্রের মেডিকেল জার্নালে বঙ্গভ্যাক্সের গবেষণাপত্র
মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৪:২৮ পূর্বাহ্ন

যুক্তরাষ্ট্রের মেডিকেল জার্নালে বঙ্গভ্যাক্সের গবেষণাপত্র

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ মে, ২০২১
  • ৮১ জন পড়েছেন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত মেডিকেল জার্নাল ‘ভ্যাকসিন’ এ প্রকাশিত হয়েছে দেশীয় প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের আবিষ্কৃত টিকা ‘বঙ্গভ্যাক্স’ এর গবেষণাপত্র। 

সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘বঙ্গভ্যাক্স’ বিশ্বের প্রথম এক ডোজের mRNA টিকা যা SARS-CoV-2 এর বিরুদ্ধে কার্যকর।

বুধবার গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. হারুনুর রশিদ ও মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. নাজনীন সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘বঙ্গভ্যাক্স’ হল mRNA প্রযুক্তিতে তৈরি বিশ্বের প্রথম এক ডোজের কার্যকরী টিকা যা SARS-CoV-2 এর বিরুদ্ধে সফলভাবে মানব কোষ এবং প্রাণীদেহে সুদৃঢ় সুরক্ষা দেখিয়েছে। 

বিশ্বের বিখ্যাত টিকা আবিষ্কারক প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশীয় প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড নিজস্ব প্রযুক্তিতে এই টিকা আবিষ্কার করেছে এবং বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশকে এক অনন্য উচ্চতায় উন্নীত করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশে কাজ করার সহজাত সীমাবদ্ধতাসমূহ যেমন- কাঁচামালের ব্যবস্থাকরণ, নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে অভিযোজন, গবেষণা তহবিলের অভাব ইত্যাদি সত্ত্বেও ড. কাকন নাগ এবং ড. নাজনীন সুলতানার নেতৃত্বে তরুণ বিজ্ঞানীদের একটি চৌকস দল এই টিকা আবিষ্কার করেছে। 

এটির অনন্য নকশা, প্রযুক্তি ও ফর্মুলেশন প্রাণীদেহে কার্যকর ফার্মাকোলোজিক্যাল প্রতিক্রিয়া তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। প্রি-ক্লিনিক্যাল গবেষণায় দেখা গেছে যে, এই টিকা মানবকোষ ও প্রাণীদেহে সহনশীল ও নিরাপদ। টিকাদান পরবর্তী ৭ম দিনে নির্দিষ্ট অ্যান্টিবডি তৈরির প্রমাণ মিলেছে যা ১৪তম দিনে কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় পাওয়া গেছে। 

টিকাদান পরবর্তী ৯১ দিন অবধি মেমরি কোষগুলো পর্যাপ্ত সংখ্যায় পাওয়া গেছে যা নির্দেশ করে যে, এই ভ্যাকসিনটি ভাইরাসের বিরুদ্ধে দীর্ঘস্থায়ী সুরক্ষা দিতে সক্ষম।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, অন্যান্য mRNA ভ্যাকসিনের তুলনায় এই ভ্যাকসিনটি সুলভ হবে, তাই স্বল্প ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর জন্য সহজেই ক্রয়যোগ্য হবে। এর মাধ্যমে এই দেশগুলোরর প্রায় ৫শ কোটি মানুষের mRNA ভ্যাকসিন পাওয়ার সুযোগ হবে। যেহেতু এটি এক ডোজের টিকা তাই অন্যান্য টিকার তুলনায় এটি ক্রয়ের জন্য ব্যয় এবং প্রয়োগের জন্য সময় সাশ্রয়ী হবে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড