কালভার্টের ইট-রড খুলে নিলেন চেয়ারম্যান
  1. [email protected] : জাহিদ হাসান দিপু : জাহিদ হাসান দিপু
  2. [email protected] : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা
  3. [email protected] : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  4. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  5. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  6. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  7. [email protected] : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  8. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  9. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  10. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  11. [email protected] : Sobuj Ali : Sobuj Ali
কালভার্টের ইট-রড খুলে নিলেন চেয়ারম্যান
মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০১:৪০ অপরাহ্ন

কালভার্টের ইট-রড খুলে নিলেন চেয়ারম্যান

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৪ মে, ২০২১
  • ৫১ জন পড়েছেন

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে রাস্তার সরকারি বক্স কালভার্টের ইট ও রড খুলে নিয়েছেন এক ইউপি চেয়ারম্যান। ওই স্থানে নতুন কালভার্ট নির্মাণের টেন্ডার হওয়ার সুযোগে এ কাজটি করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ চর আবাবিল ইউপির দক্ষিণ উদমারার ম্যানেজার রোড নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। কবেনাগাদ ঠিকাদার কাজটি শুরু করবেন তাও নিশ্চিত নয়। চলাচলের জন্য তৈরি করা হয়নি বিকল্প কোনো ব্যবস্থা। রাস্তাটি বর্তমানে বিচ্ছিন্ন থাকায় দুর্ভোগের শিকার গ্রামবাসী। 

সরেজমিন দেখা যায়, বক্স কালভার্টটির ইট খুলে পরিষ্কার করছেন ৩ শ্রমিক। তাদের এ কাজের জন্য ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিন বেপারী নিয়োজিত করেছেন বলে জানিয়েছেন শ্রমিক রুহুল আমিন, আনোয়ার হোসেন ও মুরাদ হোসেন। আগের দিন রডগুলো খুলে চেয়ারম্যানের ছেলের নির্মাণাধীন বিএডিসির পাম্প হাউসের স্থানে রাখা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন তারা। 

ইটগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা আছে রাস্তায়। রাস্তাটি এখন বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। এ সড়কে কোনো যানবাহন তো দূরের কথা সাধারণ মানুষও চলাচল করতে পারছেন না। কবেনাগাদ রাস্তাটি স্বাভাবিক হবে তাও নিশ্চিত করে কেউ বলতে পারেননি।

দক্ষিণ চর আবাবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিন বেপারী বলেন, পুরাতন অকেজো রডগুলো ছেলের কাজের স্থানে এনে শ্রমিকরা মজুদ করেছেন। ইটগুলো পরিষ্কার করে এনে রাস্তা মেরামত কাজে লাগানো হবে। এগুলোর দামবাবদ ঠিকাদারকে টাকা দেওয়ারও প্রস্তাব দিয়েছি। লোকজনের চলাচলে গাছ দিয়ে বিকল্প ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

ঠিকাদার নূরে হাওলাদার ঝিকু বলেন, বারবার নিষেধ সত্ত্বেও চেয়ারম্যান সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে ইট-রড নিয়ে যাচ্ছেন। নতুন কাজটি করার জন্য এখনই আমাদের প্রস্তুতি নেই। নিজের স্বার্থে চেয়ারম্যান রাস্তাটি বিচ্ছিন্ন করে জনদুর্ভোগ বাড়িয়েছেন। তিনি ঠিকাদারের প্রাপ্য পুরাতন রড-ইট জোরপূর্বক নিয়ে যাচ্ছেন।

এলজিইডির উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী তাজুল ইসলাম বলেন, বক্স কালভার্টটি এক লাখ ২০ হাজার টাকায় সম্পন্ন করার জন্য ঠিকাদারকে ওয়ার্ক অর্ডার দেওয়া হয়েছে। চেয়ারম্যানকে নিষেধ করা সত্ত্বেও তিনি ইট-রড খুলে নিয়ে কাজটি ভালো করেননি। এগুলোর সম্পূর্ণ এখতিয়ার ঠিকাদারের। বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজখবর নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে। 

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

টুইটারে আমরা

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড