নির্বাচনে হেরেই দলের নেতৃত্বের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা
  1. [email protected] : জাহিদ হাসান দিপু : জাহিদ হাসান দিপু
  2. [email protected] : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা
  3. [email protected] : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  4. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  5. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  6. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  7. [email protected] : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  8. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  9. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  10. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  11. [email protected] : Sobuj Ali : Sobuj Ali
নির্বাচনে হেরেই দলের নেতৃত্বের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা
রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০১:২৭ অপরাহ্ন

নির্বাচনে হেরেই দলের নেতৃত্বের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৩ মে, ২০২১
  • ৬৭ জন পড়েছেন

বিধানসভা নির্বাচনে দলের ভরাডুবির পর দলের শীর্ষ রাজ্য নেতৃত্বের বিরুদ্ধে কার্যত বিদ্রোহ ঘোষণা করলেন সিপিএম নেতা তন্ময় ভট্টাচার্য।

রোববার সন্ধ্যায় এক টেলিভিশন চ্যানেলে দলীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে একের পর এক বিস্ফোরক অভিযোগ করেন তিনি।  যার জেরে তাকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবিতে সরব হয়েছে দলের একাংশ।

রোববার বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগণনার পর দেখা যায়, রাজ্যে মাত্র ১টি আসন জিতেছে সংযুক্ত মোর্চা।  বাম বা কংগ্রেস কোনও আসনই পায়নি।  একটি মাত্র আসন পেয়েছে জোটসঙ্গী আইএসএফ। আর তারপরই হারের জন্য দলীয় নেতৃত্বকে সরাসরি কাঠগড়ায় তোলেন তন্ময়।

তিনি বলেন, ‘দলীয় নেতৃত্বের একাংশ বলে আমরা ভোটে হারজিত নিয়ে চিন্তিত নই। আমরা রাস্তায় আছি। আমাদের দল সংসদীয় রাজনীতিকে গ্রহণ করেছে। সেখানে হারজিতের ওপরেই প্রাসঙ্গিকতা নির্ভর করে। যে নেতারা রাস্তায় থাকার কথা বলতেন তাদের হাতে একটা ফুটো বাটি ধরিয়ে রাস্তায় নামিয়ে দিয়েছে জনতা।’

তন্ময় ভট্টাচার্যের দাবি, দলের কয়েকজন পলিটব্যুরো সদস্য ব্যক্তিগত সম্পত্তির মতো করে দল পরিচালনা করেন।  তারা মানুষের চাহিদার কথা না জেনেই তাদের ওপর সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেন। এভাবেই কংগ্রেস ও আব্বাস সিদ্দিকির সঙ্গে জোট চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে দলীয় কর্মীদের ওপর।

তিনি বলেন, ‘এই হারের দায় আমার বা অন্য কোনও বাম প্রার্থীর নয়।  সার্বিকভাবে বামেদের প্রত্যাখ্যান করেছে মানুষ।  তাই এই বিপর্যয়ের দায় নিতে হবে দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে।  লোকসভা নির্বাচনে যারা দলকে শূন্য করেছে তারা কোনও দায় নেয়নি।  এবার বিধানসভাতেও দল শূন্য হয়েছে।  এবার একথা – সেকথা বলে দায়িত্ব এড়ালে চলবে না।’

তন্ময়বাবুর আরও দাবি, যে দল বলে ২১ হাজার মাসিক বেতনের নিচে সংসার চালানো যায় না; তারা নিজের পার্টির সর্বক্ষণের কর্মীদের ৫ হাজার টাকা ভাতা দেয় কী করে? সর্বক্ষণের কর্মীদের তো অন্য কোনও উপার্জন নেই। তাহলে এই সামান্য টাকায় তারা সংসার চালাবে কী করে? তাদের কি ক্ষিধে কম পায়?

তন্ময় বলেন, ‘শৃঙ্খলাপরায়নতার নামে এসব প্রশ্ন দলীয় নেতৃত্ব এড়িয়ে যেতে পারেন না’।

তন্ময় ভট্টাচার্য উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য।  ২০১৬ সালের নির্বাচনে উত্তর দমদম কেন্দ্রে চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের মতো হেভিওয়েটকে হারিয়েছিলেন তন্ময়বাবু। এবার তার কাছেই হারের মুখ দেখতে হয়েছে বিদায়ী বিধায়ককে।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

সর্বাধিক জনপ্রিয়

টুইটারে আমরা

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড