বঙ্গবন্ধু হত্যার পর থেকে খালি পায়ে হাঁটেন তিনি
  1. [email protected] : জাহিদ হাসান দিপু : জাহিদ হাসান দিপু
  2. [email protected] : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা
  3. [email protected] : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  4. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  5. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  6. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  7. [email protected] : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  8. [email protected] : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  9. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  10. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  11. [email protected] : Sobuj Ali : Sobuj Ali
বঙ্গবন্ধু হত্যার পর থেকে খালি পায়ে হাঁটেন তিনি
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন

বঙ্গবন্ধু হত্যার পর থেকে খালি পায়ে হাঁটেন তিনি

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ মার্চ, ২০২১
  • ৩১০ জন পড়েছেন

ইছাহাক আলী শরিফ (৯২) খুব সাধারণ একজন মানুষ। জীবনযাপনও তার অত্যন্ত সাদামাটা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার পর থেকেই তিনি বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন। শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ড মানতে পারেননি তিনি।

দিনমজুর ইছাহাক আলী শরিফ। শেখ মুজিবকে হারানো শোক বুকে ধারণ করে দীর্ঘ ৪৫ বছর যাবত তিনি শেখ মুজিবুর রহমানের এ বাংলাদেশের মাটিতে খালি পায়ে ও তার মৃত্যুর শোক হিসেবে কালো পোশাকে চলাচল করছেন। 

এ কারণে স্থানীয়রা তাকে মুজিব ‘পাগল’ বলে আখ্যায়িত করেন। মুজিবভক্ত ইছাহাক আলী বরগুনার তালতলী উপজেলার ছোটবগী ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামে একটি জরাজীর্ণ পরিবেশে ছোট্ট একটি ঘরে বসবাস করেন।

স্থানীয়রা জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সপরিবারে নিহত হওয়ার খবর যখন সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে তখন থেকেই ইছাহাক আলী শরিফকে দেখছি পরনে কালো লুঙ্গি ও গাঁয়ে কালো জামা এবং খালি পায়ে হাঁটেন। এটা শুধু বাড়ি বসে নয়, হাটবাজারসহ কোথাও কোনো অতিথি হয়ে গেলেও এ পোশাক থাকে তার। 

আর কখনো শেখ সাহেবকে নিয়ে কেউ খারাপ মন্তব্য করলে তিনি তার প্রতিবাদ করেন। এরকম প্রতিবাদ করতে গিয়ে তিনি ৩-৪ বার হামলারও শিকার হয়েছিলেন। পুরো জীবন শেখ মুজিব, শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগ বলে কাটিয়ে দেওয়া পাগল এই ইছাহাক আলী শরিফ। 

‘জয়বাংলা’ স্লোগানের জন্য নানারকম অত্যাচার-নিপীড়ন সহ্য করেছেন কিন্তু তাকে জয়বাংলা থেকে সরাতে পারেনি কেউ। তবে এর বিনিময়ে সারাজীবন মুজিব-হাসিনা-নৌকা করে যাওয়া মুজিব পাগল নিজের অভাব অনটনসহ কোনো কিছুর জন্য কারও কাছে ধরনাও দেননি।

ইছাহাক আলী শরিফ বলেন, এহোনগো নেতাগো ধারে মোর কিছু চাওয়ার নাই। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন করা এই জমিনে তিনি শুয়ে আছেন। আর সেই জমিনে আমি কোনদিনই জুতা পায়ে হাঁটিনি আর হাঁটবও না। শুধু গ্রামে গ্রামে ঘুরে শেখ মুজিবের নামে দোয়া চাচ্ছি। 

তিনি আরও বলেন, এহন সবাই আওয়ামী লীগ করে, আওয়ামী লীগকে ভালোবাসে। আর আমি মুজিবকে ভালোবাসি। একজন মুজিব ছিল বলেই আজ বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। আমরা পেয়েছি স্বাধীন রাষ্ট্র। যে মাটিতে আমার নেতা শেখ সাহেব ঘুমিয়ে আছেন, সেই মাটিতে আমি কোন দিনই জুতা পায়ে হাঁটতে পারব না। তাই শেখ সাহেবের মৃত্যুর পর আর কোনদিন জুতা পায়ে দেই না। তার মৃত্যুর শোকে তখন থেকেই কালো পোশাক পরিধান করি। 

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ছোটবগী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মু. তৌফিকউজ্জামান তনু বলেন, শেখ মুজিবের মৃত্যুর পর থেকে খালি পায়ে হাঁটা ও কালো পোশাক পরিধান করা ইছাহাক আলী শরিফ এলাকায় মুজিব পাগল নামে পরিচিত। তিনি কোনো কিছু দাবি না করলেও চেয়ারম্যান হিসেবে তার পরিবারের দিকে বিশেষ খেয়াল রাখি।

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড