1. khulna@nongor.news : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা : মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, খুলনা
  2. news-desk@nongor.news : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  3. nisan@nongor.news : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  4. mdashik.ullah393@gmail.com : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  5. rabbi@nongor.news : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  6. sultanashaila75@gmail.com : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  7. sakia@nongor.news : দৈনিক নোঙর ডেস্ক : দৈনিক নোঙর ডেস্ক
  8. ronia3874@gmail.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  9. sarowar@nongor.news : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
রংপুরে মার্কেটের ৩০ দোকান ভস্মীভূত
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪২ অপরাহ্ন

রংপুরে মার্কেটের ৩০ দোকান ভস্মীভূত

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১
  • ১১২ জন পড়েছেন

রংপুর নগরীর স্টেশন রোডের শাহ্ জামাল মার্কেটে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। পরে ফায়ার সার্ভিসের ১২টি ইউনিট প্রায় দেড় ঘণ্টায় চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। এতে ৩০টি দোকান আগুনে পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান। তিনি এ সময় ক্ষতিগ্রস্তদের খোঁজখবর নেন এবং ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে নগদ টাকা, চাল, শুকনো খাবার ও কম্বল বিতরণ করেন। 

মঙ্গলবার ভোর ৬টার দিকে নগরীর স্টেশন রোডের গ্র্যান্ড হোটেল মোড়ের কাপড়ের এ মার্কেটে আগুন লাগে। তবে কীভাবে আগুন লেগেছে তা এখনো জানা যায়নি।

রংপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক ওহিদুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার সকালে খবর পেয়ে প্রথমে ৮টি ইউনিট এবং পরে আরো দুইটি ইউনিটসহ মোট ১২টি ইউনিটের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন তারা। তবে আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে এখনও কেউ নিশ্চিত হতে পারেননি। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনো জানা যায়নি।

এদিকে মার্কেটের ভিতরের অন্তত ৩০টি কাপড়ের দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এই আগুনে ব্যবসায়ীদের কোটি কোটি টাকার মালামাল পুড়ে গেছে। তবে কোনো প্রাণহানি হয়নি।

আগুন লাগার খবর পেয়ে ছুটে আসেন মিজানুর রহমান নামে এক ব্যবসায়ী। মার্কেটের ভিতরে থাকা তার চারটি দোকানের সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে গেছে বলে দাবি করেন তিনি।

এই ব্যবসায়ী বলছিলেন, আগুনে আমার সবশেষ হয়ে গেল। এতো দিনে যা সঞ্চয় করেছি, সবকিছু আগুনে পুড়ে শেষ। কোনো মালামাল রক্ষা হয়নি। 


হোসেন আলী নামে একজন ব্যবসায়ী জানান, ফায়ার সার্ভিসের লোকেরা চেষ্টা করেছে, কিন্তু আমাদের কিছুই রক্ষা হয়নি। আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি হয়। মার্কেটের সামনের দোকানগুলো রক্ষা হলেও ভিতরে অনেকের মালামাল,টাকা-পয়সা সবই আগুনে পুড়ে গেছে। আমাদের ঈদের ব্যবসা আর হবে না। 

মার্কেটের পাশেই অবস্থিত তেঁতুলতলা জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন আবু বকর সিদ্দিক জানান, ফজরের নামাজের পর আমরা ফায়ার সার্ভিসের গাড়ির শব্দ শুনে বের হয়ে দেখি আগুন লেগেছে। কাপড় ও মেশিনে আগুন লাগায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। এ কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিসের অনেক সময় লাগে। তবে কীভাবে আগুন লেগেছে তা তিনি বুঝতে পারছেন না।  

এদিকে সকাল সোয়া ৯টায় পর পুরোপুরি আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। এ সময় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে মার্কেটের আশপাশ।

শাহজামাল মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হোসেন জানান, ওই মার্কেটে প্রায় সবাই কাপড় ব্যবসায়ী। মঙ্গলবার সকাল ৬টার দিকে মার্কেটে আগুন দেখে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়। অগ্নিকাণ্ডে মার্কেটের দুই লাইনের ২৫-৩০ দোকান পুড়ে যায়। এতে কয়েক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সূত্রঃ যুগান্তর

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড