ঘোপ বাঁওড় পরিদর্শনে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার
  1. news-desk@nongor.news : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  2. niloy@nongor.news : Creative Niloy : Creative Niloy
  3. nisan@nongor.news : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  4. mdashik.ullah393@gmail.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  5. sultanashaila75@gmail.com : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  6. ronia3874@gmail.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  7. sarowar@nongor.news : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
ঘোপ বাঁওড় পরিদর্শনে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার
রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৩:৫৮ পূর্বাহ্ন

ঘোপ বাঁওড় পরিদর্শনে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৬৭ জন পড়েছেন

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার নৈসর্গিক সৌন্দর্য ঘোপ বাঁওড়। বাঁওড়ে প্রতি বছরের নির্দিষ্ট সময়ে শীতপ্রধান দেশ থেকে ছুটে আসে নানান প্রজাতির অতিথি পাখি। এসব অতিথি পাখির ঝাঁকে ঝাঁকে বিচরণ, কিচিরমিচির আর জলে ডানা ঝাপটানোর শব্দ ভেঙে দেয় নীরব-নিথর গ্রামের নির্জনতা।

তা ছাড়া দেশীয় প্রজাতির পাখির কলকাকলিতে মুখর থাকে বাঁওড় এলাকা। গত ৮ জানুয়ারি যুগান্তর অনলাইনে এবং প্রিন্টে ‘মহম্মদপুরে অতিথি পাখি শিকারিদের তৎপরতা বেড়েছে’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সংবাদটি মাগুরা জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুল আলমের নজরে এলে তিনি পরিদর্শন করে ঘোপ বাঁওড়টি সংরক্ষণ করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং গত ৩ ফেব্রুয়ারি যুগান্তর অনলাইনে সংবাদটি প্রকাশিত হয়।

মাগুরা জেলা প্রশাসকের আমন্ত্রণে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. ইসমাইল হোসেন রোববার বিকালে মহম্মদপুর ঘোপ বাঁওড়টি পরিদর্শন করেন।

খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. ইসমাইল হোসেন পরিদর্শন শেষে জানান, মাগুরার মধ্যে অন্যতম সেরা মহম্মদপুরের ঘোপ বাঁওড়টি। মহম্মদপুরকে বেছে নেওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে এ ঘোপ বাঁওড়। এ ঘোপ বাঁওড়টিতে নৌকায় ভ্রমণ করে অনেক ভালো লেগেছে।

বিশেষ করে নানা প্রজাতির অতিথি পাখির বিচরণ মন কেড়ে নিয়েছে।

ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুর আলম এ জলাশয়টি সংরক্ষণ করার  উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, আমিও পরিকল্পনা করেছি ঘোপ বাঁওড়টিতে কিছু একটা করার। এ জন্য সরেজমিন বাঁওড়টি দেখতে এসেছি। এমন কিছু করতে হবে যা হবে দৃষ্টিনন্দন, যা দেখতে সারা দেশ থেকে ভ্রমণ করতে দর্শনার্থীরা এ ঘোপ বাঁওড়ে আসবে।

ঘোপ বাঁওড়টি পরিদর্শনের সময় আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আফাজ উদ্দিন, মহম্মদপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আবু আব্দুল্লাহেল কাফি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার রামানন্দ পাল, সহকারী কমিশনার (ভূমি) হরেকৃষ্ণ অধিকারী প্রমুখ।

স্থানীয় বাসিন্দা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, বিকাল হলেই ঘোপ বাঁওড়ে বালি হাঁস, সারস পাখি, ডুবুরি পাখিসহ নানান প্রজাতির অতিথি পাখির সঙ্গে দেশীয় পাখির কলকাকলি ঘোপ বাঁওড়ের সৌন্দর্যকে আরও মনোরম করে তোলে। এসব পাখির ঘুম ভাঙানি কলরবে ভোরের কম্বল জড়ানো ঘুম ভাঙে বাঁওড়বাসীর। নৈসর্গিক দৃশ্য উপভোগ করতে প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকা থেকে শিশু, নারী-পুরুষসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ দূরদূরান্ত থেকে দেখতে আসে।

স্থানীয়রা আরও বলেন, জানতে পেরেছি ঘোপ বাঁওড়টি সংরক্ষণ করা হবে। তা হলে পাখি শিকারিরা এসব অতিথি পাখি আর শিকার করতে পারবে না।

সূত্রঃ যুগান্তর

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড