‘প্রকল্প বাস্তবায়নে দুর্নীতি হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে’
  1. news-desk@nongor.news : বার্তা ডেস্ক : বার্তা ডেস্ক
  2. niloy@nongor.news : Creative Niloy : Creative Niloy
  3. nisan@nongor.news : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  4. mdashik.ullah393@gmail.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  5. sultanashaila75@gmail.com : Shaila Sultana : Shaila Sultana
  6. ronia3874@gmail.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  7. sarowar@nongor.news : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
‘প্রকল্প বাস্তবায়নে দুর্নীতি হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে’
শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:২৫ পূর্বাহ্ন

‘প্রকল্প বাস্তবায়নে দুর্নীতি হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে’

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৫০ জন পড়েছেন

সরকার জনগণের টাকায় প্রকল্প বাস্তবায়ন করে তাই প্রকল্প বাস্তবায়নের কোন ধাপে দুর্নীতি হলে আইন অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। 

মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর শের-ই বাংলানগরে প্রকল্প অনুমোদনের আগে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের গুরুত্ব শীর্ষক সেমিনারে এই হুঁশিয়ারি দেন মন্ত্রী। 

এসময় মন্ত্রী বলেন, দুর্নীতি নিয়ে আসলে আলোচনার কিছু নাই। এটা একটা অপরাধ। আইন মোতাবেক ব্যবস্থা রয়েছে। আমাদের উচিত এই অপরাধ থেকে দূরে থাকা। আর কেউ জড়িয়ে পড়লেও তা প্রমাণ হলে আইন অনুযায়ী যে শাস্তি রয়েছে সেই ব্যবস্থা করা হবে।  

সরকারি অর্থ ব্যয় বা প্রকল্পের দুর্নীতি পকেটমারের মতো সংঘবদ্ধ অপরাধ নয় বলে মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, আমি আশা করি পরিকল্পনা মন্ত্রণলায়ে কর্মরত কর্মকর্তাদের কেউ দুর্নীতিগ্রস্ত নয়। মানুষজন দুর্নীতি নিয়ে অনেক কথা বলতে আগ্রহী; এর মানে অবশ্যই দুর্নীতি আছে। এ বিষয়ে সকলের সচেতন থাকা উচিত। 

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই ও বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে অনেক সময় বিশেষজ্ঞদের মতামত দরকার হয়। তবে আমরা সরকার পক্ষের হয়ে যারা কাজ করি তারা যেন খেয়াল রাখি টাকার কোন অপচয় হচ্ছে কিনা।

এসময়, পরিকল্পনা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মো.আসাদুল ইসলাম বলেন, একনেক সভায় প্রায় প্রকল্পের সম্ভাব্য যাচাই (ফিজিবিলিট স্টাডি) নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। কোন প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই-ই করা হয়নি আবার কোন প্রকল্পের তা করা হলেও সঠিকভাবে হয়নি; এ ধরনের প্রশ্ন উঠে। তাই প্রকল্প জমা দেয়ার আগে এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে আরও বেশি আন্তরিক হতে হবে। 

সেমিনারে একনেকের যুগ্ম প্রধান মো. ইউনুছ মিয়া প্রকল্প তৈরির বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, প্রকল্পের অর্থনৈতিক ও সামাজিক গুরুত্ব কতটুকু সবার আগে তা বিবেচনায় আনতে হবে। সেই প্রকল্প বাস্তবায়নে যথেষ্ট জনবল আছে কিনা তাও বিচেনায় রাখতে হবে। দেখতে হবে যেন এক বিভাগের প্রকল্প অন্য বিভাগে না যায়। অর্থাৎ সড়ক বিভাগের প্রকল্প যেন সেতু বিভাগে না যায় আর সেতু বিভাগের প্রকল্প যেন এলজিইডি বিভাগে না যায় তা সচেতনভাবে নজরে রাখতে হবে। যে মন্ত্রণালয়ের যে বিভাগ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে  যাচ্ছে বা চায় সেই বিভাগের আইনগত কোন সীমাবদ্ধতা আছে কিনা তাও আগেই দেখতে হবে। 

সেমিনারে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তারা অংশ নেন। 

সূত্রঃ সময় নিউজ

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরও সংবাদ

টুইটারে আমরা

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২০

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

সৌজন্যে : নোঙর মিডিয়া লিমিটেড