রাসিকে’র কনজারভেন্সি সুপারভাইজারের বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকুরীতে পদোন্নতির অভিযোগ

88

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন কনজারভেন্সি সুপারভাইজার সিজারের বিরুদ্ধে জাল সনদপত্রের মাধ্যমে চাকুরীতে পদোন্নতি অর্জন,বিএনপি রাজনীতির সাথে সংশ্লিষ্টতা ও সক্রিয় রাজনীতিতে অংশগ্রহন,সিটি কর্র্পোরেশনের ওয়্যারলেস ও পরিচয় ব্যবহার করে সাধারণ মানুষকে ভয়ভীতি প্রদর্শন ও জোরপূুর্বক অর্থ আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে গত ১৩ই অক্টোবর কয়েকজন ভুক্তভোগী রাজশাহী সিটি কর্র্পোরেশনের মেয়র বরাবর লিখিত অভিযোগ পত্র দাখিল করেন।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, রাজশাহী সিটি কর্র্পোরেশনে কনজারভেন্সি সুপারভাইজার সিজার রাজপাড়া থানাধীন তেরখাদিয়া পশ্চিম পাড়া এলাকার মৃত হাসমত আলী (কন্টল) এর ছেলে। বিগত সময়ে তিনি রাজশাহী সিটি কর্র্পোরেশনে মসক শাখায় গার্র্ড হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন। বর্তমানে তিনি কনজারভেন্সি সুপারভাইজার হিসেবে কর্মরত আছেন। কনজারভেন্সি সুপারভাইজার পদে এস.এস.সি পাশের যোগ্যতা প্রয়োজন। কিন্তু সে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। কিন্তু তিনি যে, এস.এস.সি পাশের সার্টিফিকেট দ্বারা এই পদে চাকুরি করছেন তা আমার জানা মতে জাল সার্টিফিকেট। তাই উক্ত সার্টিফিকেটটি যাচাই বাছাই করার জন্য অনুরোধ করা হয় অভিযোগে।

অভিযোগে আরো উল্লেখ আছে, সে রাজশাহী সিটি কর্র্পোরেশনে চাকুরি করা বাদেও স্কেভেটর ভেকু দ্বারা বিভিন্ন স্থানে মাটি খননের কাজ করে এবং স্কেভেটর ভেকুর মালিকদের টাকা সঠিক ভাবে পরিশোধ করে না। তার যথা যথ প্রমান এই দরখাস্তের সাথে দেওয়া আছে। সে রাজশাহী সিটি কর্র্পোরেশনের ওয়্যারলেস ব্যবহার করে সাধারণ মানুষের কাছে নিজেকে পুলিশ পরিচয় দেয়। এ ছাড়াও তার ২ টি নিজস্ব প্রাইভেট কার (কাগজপত্র বিহিন) আছে, ১টি জিকসার মটরসাইকেল ও ১টি ফেজার মটরসাইকেল আছে ও ১টি ট্রাকটার আছে। সে সিটি কর্র্পোরেশন এর বিভিন্ন গাড়ি তার নিজের ব্যক্তিগত ব্যবসায়িক কাজে ব্যবহার করে অবৈধ অর্র্থ উপার্জন করে।

এছাড়াও অভিযোগে সিজারসহ তার পরিবার বিএনপি এর অঙ্গ সংগঠনের সাথে সর্র্বত্রভাবে জড়িত। সিজার সাহেব বাজারে বিএনপি- জামাত পন্থি গাড়ি পোড়ানো মামলার আসামি। তার মেজো ভাই মোঃ উজ্ব, পুলিশ হত্যার একজন এজাহারভুক্ত আসামি।
এমন অভিযোগের বিষয়ে জানতে রাজশাহী সিটি কর্র্পোরেশনের কনজারভেন্সি সুপারভাইজার সিজার এর মোবাইলে ফোন দিলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এমন অভিযোগের বিষয়ে জানতে রাজশাহী সিটি কর্র্পোরেশনের প্রধান পরিছন্ন কর্মকর্তা মামুনুর রশিদ ডলার বলেন, প্রথমতো এমন অভিযোগের বিষয়ে আমার জানা নেই। তার পরেও কনজারভেন্সি সুপারভাইজার সিজার দৈনিক মজুরি ভিত্তিক চাকুরি করেন। এ ক্ষেত্রে কোন সনদপত্রের প্রয়োজন হয়না। আর সে চাকুরির বাইরে যে ব্যাবসাগুলো করেন সেগুলো তার ব্যাক্তিগত ব্যবসা। এ বিষয়ে রাসিক কতৃপক্ষ হস্তক্ষেপ করতে পারে না।